শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা থাকা সত্ত্বেও যে ৩ জন খেলোয়াড় এখনো পর্যন্ত সবার কাছে সেরা

শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা থাকা সত্ত্বেও যে ৩ জন খেলোয়াড় এখনো পর্যন্ত সবার কাছে সেরা।

একজন খেলোয়াড়ের একটি ম্যাচ খেলার জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় জিনিস হচ্ছে তার ফিটনেস ঠিক রাখা। বর্তমানে খেলোয়াড় রয়েছে তাদের দেখে জিমনাস্টিক মনে হয়। আর ফিটনেস ক্রিকেটারদের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মূল বিষয়। কারণ ফিটনেস হচ্ছে একজন খেলোয়াড়ের জন্য মূলমন্ত্র ফিটনেস ঠিক না থাকলে তাকে খেলার সুযোগ দেওয়া হয় না। আর যার ফিটনেস ঠিক থাকে তাকে খেলার সুযোগ দেয়া থাকে হয়। তারপরে বিষয় আসে কে ভালো খেলে কে খারাপ খেলে। কোনো খেলোয়ার যদি ফিটনেস ঠিক না থাকে সে সব দিক থেকে পিছিয়ে থাকে। আর ক্রিকেটে ইনজুরি একটি কমন ব্যাপার। ক্রিকেটে এমন অনেক খেলোয়ার রয়েছে যারা ইনজুরির কারণে অল্প সময়ের পর তার ক্যারিয়ার শেষ করেছেন। আজকে আপনারা জানতেন কিন্তু আজকে আপনারা চারটের খেলা সম্পর্কে যারা ইনজুরি থেকে ফিরে আসার পর তাদের আগের ভালো ফর্মে ফিরে এসে পুরো খেলাকে নিজের দখলে করে নিয়েছেন।

শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা থাকা সত্ত্বেও যে ৩ জন খেলোয়াড় এখনো পর্যন্ত সবার কাছে সেরা

মাশরাফি বিন মর্তুজা (বাংলাদেশ):

মাশরাফি বিন মোর্তজার বাংলাদেশের জন্য একজন অন্যতম খেলোয়াড়। তিনি বাংলাদেশকে ক্রিকেটের দুনিয়ায় বড় টিম হিসেবে নাম করে দিয়ে গেছেন। তার মূল্য বাংলাদেশ টিমের জন্য অনেক। তার জীবনের বেশিভাগ সময়ে বাংলাদেশের হয়ে একদিনের ম্যাচগুলোর ক্যাপ্টেন্সি পালন করেছেন। মাশরাফি বিন মোর্তজা গল্পটা হচ্ছে একটু বেশি কঠিন পরিশ্রমের। তিনি তার অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার জন্য তার অবিশ্বাস্য শৃঙ্খলা, রক্ত জল করা খাটুনি তারপর কঠিন ইনজুরির মধ্য দিয়ে খেলেছেন সবসময়। তার খেলার শুরুতেই তিনি নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বড় ধরনের ইনজুরির পর ১৫ বছর ধরে মোট ১১ বার ইনজুরিতে পড়েছেন তিনি। আর এই ইঞ্জুরিগুলো সাধারণ ইনজুরি ছিল না। এর মধ্যে তার বাম পায়ে চারবার এবং ডান পায়ে তিনবার অপারেশন করা হয়েছে। তিনি তার টেস্ট অধিনায়কত্ব পাওয়ার প্রথম ম্যাচে ইনজুরিতে পড়েছিলেন। আবার তিনি তার ইনজুরির কারণে তার ঘরের মাঠে হওয়া বিশ্বকাপ মিস করেছেন। তার পরেও তিনি হাল ছাড়েননি। জানা গেছে যে তিনি প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে তার পায়ে যন্ত্রণাদায়ক ইনজেকশন নিয়ে ঘুমাতে যেতেন। তবুও তিনি তার ইনজুরিতে পরোয়া না করে বাংলাদেশের জন্য ক্রিকেট খেলে গেছেন। শারীরিকভাবে তার সমস্যা থাকা সত্ত্বেও তিনি পেস বল করার জন্য লম্বা দৌড় দিয়ে বল করতেন।

শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা থাকা সত্ত্বেও যে ৩ জন খেলোয়াড় এখনো পর্যন্ত সবার কাছে সেরা

পেট কামিন্স (অস্ট্রেলিয়া):

একজন পেস বোলারের জন্য মধ্যমা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আউট সুইং বল করতে হলে সেই আংগুলের ব্যবহার ভালো করে করতে হয়। কিন্তু যদি আপনার মধ্যমা আঙ্গুল না থাকে বা সেটায় যদি সমস্যাটা থাকে তাহলে আপনি আউট সুইং কিভাবে করবেন? এমনই এক আজব ঘটনার শিকার এই পেস বোলার। কামিন্সের আঙ্গুলের অংশ হারানোর গল্প হয়তো অনেক পুরনো। তিন বছর বয়সে এক দুর্ঘটনায় আঙ্গুলে অগ্রভাগ হারিয়েছে এই অস্ট্রেলিয়ান পেজ বোলার। দরজা লাগানোর সময় তার হাতের আঙ্গুল ওই দরজার ফাঁকে ছিল এবং ভুলবশত তার বোন দরজা লাগিয়ে দেয়। অস্ত্র পাচার করে তার আঙ্গুলের মধ্যমার উপরিভাগ ফেলে দেয়া হয়েছিল। এরপরেও পেট কামিন্স হার মেনে নেয়নি। তিনি হয়েছেন পেস বোলার। ২০২০ সালের ৪ টি টেস্ট ম্যাচে তিনি মোট সংগ্রহ করেছিলেন ২৪ উইকেট। এর মধ্যে বেশিরভাগ উইকেট পেয়েছেন তিনি সুইং বল করে। এর ফলে সবাই এখন অবাক হয়ে যাবেন। এখন আপনাদের প্রশ্ন হতে পারে স্বাভাবিক আঙ্গুলে তুলনায় তার আঙ্গুলের মধ্যমার অগ্রভাগ নেই তাহলে সে সুইং করছে কিভাবে? এটার উত্তর কামিন্সই ভালো করে জানে।

শারীরিক প্রতিবন্ধীকতা থাকা সত্ত্বেও যে ৩ জন খেলোয়াড় এখনো পর্যন্ত সবার কাছে সেরা

নিকোলাস পুরান (ওয়েস্ট ইন্ডিজ):

২০১৫ সালে ১৯ বছর বয়সে তিনি গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হয়েছিলেন। এর ফলে তার দুই পায়ই ভেঙ্গে যায়। এতে তিনি কয়েক বছর ধরে হাটা চলা করতে পারেননি। এটি একেবারে নিষিদ্ধ ছিল। তার ডান পায়ের গোড়ালি ভেঙ্গে যায়। তিনি আর ক্রিকেট খেলতে পারবেন কিনা এটা নিয়ে একটু বড় প্রশ্ন ছিল। পুরান উত্তরে বলে, “তিনি নাকি ডাক্তারকে জিজ্ঞেস করেছিল যে তিনি আর ক্রিকেট খেলতে পারবে কিনা।” উত্তরে ডাক্তার অস্ত্রোপচার করা না পর্যন্ত এ বিষয়ে নিশ্চিত ছিল না। কিন্তু অস্ত্রোপচারের পর তিনি হুইলচেয়ার কয়েক বছর কাটিয়ে ছিলেন। তারপর তিনি আবার পুনরায় ক্রিকেটে ফিরে আসলেন। এখন তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের একজন নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান।

Mesin slot adalah sebuah mesin judi yang bergambar didalamnya dimainkan dengan tiga putaran atau lebih yang berputar ketika sebuah tombol ditekan. Mesin slot saat itu juga dikenal sebagai bandit bertangan satu karena mesin slot dioperasikan menggunakan sebuah tuas disamping mesin dengan mengarahkan ke bawah tuas tersebut maka gambar akan berputar secara acak sampai berhenti dan mendapatkan hasil bermain.

Meningkatnya penggemar mesin slot, maka muncul banyak mesin slot dengan permainan baru. Salah satunya yang paling terkenal adalah mesin slot buah, yang kita kenal dengan nama "dingdong". Permainan ini pada masanya gampang ditemui disetiap kota Indonesia, menjadikan nya sebagai judi yang paling digemari.

Menjamurnya tempat-tempat judi slot mesin, membuat pihak berwenang menutup semua kegiatan ini. Sehingga dalam rentan beberapa tahun permainan ini mulai dilupakan dan hilang nama besarnya. Berkembangnya judi online Indonesia untuk taruhan sportsbook dan casino membuat provider slot mengambil peluang besar ini untuk mengaplikasikan permainan mesin slot ke slot online. Dan permainan ini kembali muncul dan terkenal membuat para penggemar taruhan ini untuk bermain kembali. Berikut daftar situs judi slot online terpercaya:

  1. Nuke Gaming Tergacor
  2. Situs Slot Online Deposit Pulsa
  3. Situs Slot Gacor 2022
  4. Situs Slot Online Terbaik
  5. Situs Judi Slot Online Terpercaya Paling Gacor
  6. Situs Slot Online Terbaik
  7. Situs Judi Slot Terbaik Dan Terpercaya No 1
  8. Situs Judi Slot Online Gampang Menang
  9. Situs Judi Slot Online Terpercaya 2022
  10. Bocoran Slot Gacor Hari Ini
  11. Situs Judi Slot Terbaik Dan Terpercaya No 1
  12. Slot Online Yang Sering Kasih Jackpot
  13. Judi Slot Online Jackpot Terbesar
  14. Situs Judi Slot
  15. Link Situs Judi Slot Terpercaya
  16. Slot Deposit Dana
  17. Slot Deposit Pulsa Tanpa Potongan
  18. Slot88 Online
  19. Situs Judi Slot Online Gacor Terbesar 2022
  20. BO Slot Gacor
  21. Situs Judi Slot Online Terpercaya 2021
  22. Situs Judi Slot Online Resmi
  23. Situs Slot Deposit Pulsa Tanpa Potongan